কালিমা, নামায, রোযা, হজ্ব ও যাকাত নিয়ে ইসলামী জীবন

ইমাম হোসাইন এর কারামত (২)

1,430

মস্তক মোবারকের সমাধি যিয়ারত

হযরত সায়্যিদুনা আবদুল ফাত্তাহ্ বিন আবু বকর বিন আহমদ শাফেয়ী খালুতী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ তাঁর রচিত ‘নূরুল আইন’ রিসালাতে বর্ণনা করেন: শায়খুল ইসলাম শামসুদ্দিন লক্কানী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ যিনি তৎকালীন যুগে মালেকী মাযহাবের শিক্ষাগুরু ছিলেন,সর্বদা মাসহাদে হোসাইনীতে মস্তক মোবারকের যিয়ারতের জন্য গমন করতেন। তিনি বলতেন: হযরত ইমামে আলী মকাম, ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর মস্তক মোবারক এখানে অবস্থিত। হযরত সায়্যিদুনা শায়খ শিহাব উদ্দীন হানাফী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ আমি ‘মাসহাদে হোসাইনী’ যিয়ারত করেছিলাম, কিন্তু আমার সন্দেহ জাগল সেখানে মস্তক মোবারক আছে কিনা? হঠাৎ আমার চোখে ঘুম চলে এল, আমি স্বপ্নে দেখলাম এক ব্যক্তি নকিবের আকৃতিতে মস্তক মোবারকের কাছ থেকে বের হয়ে হুযুর পুরনূর صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর হুজরা মোবারকে গিয়ে উপস্থিত হলেন এবং হুযুর صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم কে আরয করলেন: “ইয়া রাসূলাল্লাহ্ صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم!আহমদ বিন খালবী ও আবদুল ওয়াহ্হাব আপনার শাহজাদা ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর মস্তক মোবারকের সমাধি যিয়ারত করেছেন। তখন নবী করীম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم ইরশাদ করলেন: “ اَللّٰهُمَّ تَقَبَّلْ مِنْهُمَا وَاغْفِرْ لَهُمَا” অর্থাৎ- হে আল্লাহ্! তুমি তাঁরা উভয়ের যিয়ারত কবুল করো এবং তাদেরকে ক্ষমা করে দাও।”
হযরত সায়্যিদুনা শায়খ শিহাব উদ্দীন হানাফী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ বলেন; সেদিন থেকে আমি নিশ্চিত হয়ে গেলাম যে, হযরত ইমামে আলী মকাম رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর মস্তক মোবারক এখানেই বিদ্যমান আছেন। অতঃপর আমি মৃত্যু পর্যন্ত সে মস্তক মোবারকের যিয়ারত করা ত্যাগ করিনি। (শামে কারবালা, ২৪৭ পৃষ্ঠা)
উন কি পাকী কা খোদায়ী পাক করতা হে বয়ান
আয়ায়ে তাথহীর ছে জাহের হে শানে আহলে বাইত।

মস্তক মোবারকের সালামের জবাব

হযরত সায়্যিদুনা শেখ খলিল আবুল হাসান তমারসী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ মস্তক মোবারকের যিয়ারতের জন্য যখন মাসহাদে হোসাইনীতে উপস্থিত হতেন, তখন তিনি বলতেন: اَلسَّلَامُ عَلَيْكُمْ يَا اِبْنَ رَسُوْلِ الله অর্থ: ইয়া রাসূলাল্লাহ صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর নয়নমনি! আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হোক। সাথে সাথে কবর থেকে জবাব আসত: وَعَلَيْكَ السَّلَام يَا اَبَا الْحَسَن অর্থ: হে আবুল হাসান! তোমার উপরও শান্তি বষির্ত হোক। একদিন তিনি সালামের জবাব না পেয়ে খুবই অস্থির হয়ে পড়লেন এবং যিয়ারত শেষ করে তিনি বাড়িতে চলে এলেন। পরদিন তিনি পুনরায় সেখানে গিয়ে সালাম জানালেন এবং কবর থেকে যথারীতি সালামের জবাবও শুনতে পেলেন। তিনি জিজ্ঞাসা করলেন: “ইয়া সায়্যিদি! গতকাল আপনার সমধুর জবাব থেকে বঞ্চিত ছিলাম। কারণ কি?” বললেন: “হে আবুল হাসান! গতকাল এ সময় আমি আমার নানাজান, নবী করীম, রউফুর রহীম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর খিদমতে উপস্থিত হয়েছিলাম এবং তাঁর সাথে আলাপরত ছিলাম (তাই জবাব দিতে পারিনি)।” (শামে কারবালা, ২৪৭ পৃষ্ঠা)
জুদা হোতি হে জানে জিছিম ছে জানা ছে মিলতে হে,
হোয়ি হে কারবালা মে গরম মজলিসে ওয়াসাল ওফুরকত কি।
হযরত সায়্যিদুনা ইমাম আবদুল ওয়াহহাব শা’রানী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ বর্ণনা করেন: সুফী সাধকদের মতে হযরত সায়্যিদুনা ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর নূরানী মস্তক মাসহাদে হোসাইনীতে অবস্থিত। শায়খ করিম উদ্দীন খালুতী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ বর্ণনা করেন: আমি হুযুর صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর পক্ষ থেকে অনুমতি নিয়ে মাসহাদে হোসাইনীতে মস্তক মোবারকের যিয়ারত করেছিলাম। (শামে কারবালা, ২৪৮ পৃষ্ঠা)
ইছি মন্জর পে হার জানিব ছে লাখো কি নিগাহে হেঁ,
ইছে আলম কো আখিঁ তক রহি হে ছারে খলকত কি।

মস্তক মোবারকের আশ্চর্যজনক বরকত

বর্ণিত আছে; মিসরের অধিপতি সম্রাট নাসিরকে এক ব্যক্তি সম্পর্কে জানানো হলো যে, সে শাহী মহলের কোন্ স্থানে গুপ্তধন আছে তা জানে, কিন্তু কাউকে বলে না। সম্রাট তার কাছ থেকে গুপ্তধন সম্পর্কে তথ্য বের করার জন্য তাকে শাস্তি দেয়ার নির্দেশ দিলেন। যাকে শাস্তি দেয়ার দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছিল, সে তাকে গ্রেফতার করল এবং তার মাথার উপর কয়েকটি গোবরে পোকা এবং এর উপর কয়েকটি লাক্ষা পোকা রেখে কাপড় দ্বারা মাথা বেঁধে দিল। এটা এমন এক ধরনের শাস্তি যা কোন মানুষ এক মিনিটও সহ্য করতে পারে না। যাকে এধরনের শাস্তি প্রদান করা হয় তার মস্তিষ্কের চামড়া বিদীর্ণ হতে থাকে। ফলে তীব্র যন্ত্রণায় সে গোপন তথ্য তাড়াতাড়ি বলে দেয়। আর যদি না বলে, তাহলে যন্ত্রণায় ছটফট করতে করতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। কিন্তু আশ্চর্যের ব্যাপার যে, তাকে এ শাস্তি কয়েকবার দেওয়ার পরও তার মধ্যে এর কোনরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা গেল না এবং তাকে বিন্দুমাত্রও ঘায়েল করতে পারল না বরং প্রতিবারে পোকাগুলোই মারা গেল। লোকেরা তাকে এর কারণ জিজ্ঞাসা করলে সে জানায়, যখন হযরত ইমামে আলী মকাম সায়্যিদুনা ইমাম হোসাইন صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর মস্তক মোবারক মিশরে আনা হয়েছিল, اَلْحَمْدُ لِلّٰهِ عَزَّوَجَلّ আমি ভক্তি সহকারে, শ্রদ্ধাভরে তা আমার মাথার উপর রেখেছিলাম। সে পবিত্রাত্মার মস্তক মোবারকের বরকত ও কারামতের কারণে আমার মধ্যে শাস্তির কোন ক্রিয়া অনুভূত হল না। (শামে কারবালা, ২৪৮ পৃষ্ঠা)
ফুল জখমো কি খিলায়ি হে হাওয়ায়ে দোস্ত নে,
খুন ছে ছিঁনচা গেয়া হে গুলিস্তানে আহলে বাইত।
صَلُّوا عَلَى الحَبِيب ! صَلَّى اللهُ تَعَالَى عَلى مُحَمَّد 
ইমাম হোসাইন এর কারামত

বিষাক্ত কীটসমূহের পরিচিতি

জানা গেল, বরকতময় বস্তু শ্রদ্ধাভরে মাথার উপর রাখলে উভয় জগতে সফলতা লাভ করা যায়। বর্ণিত কাহিনীতে গোপন তথ্য বের করার জন্য শাস্তির উপকরণ হিসাবে মাথার উপর যে দুটি পোকা রাখার কথা উল্লেখ করা হয়েছে, তার সংক্ষিপ্ত পরিচিতি আপনাদের সম্মুখে পেশ করা হলো।
خَنَافِس এটা خُنْفَسَا এর বহুবচন। ইহা এমন এক ধরনের পোকা যা গোবর ও আবর্জনাময় স্থানে জন্ম নিয়ে থাকে, এর রং সচরাচর কালো এবং এর দুটি শিং থাকে। উর্দূতে একে “গোবরিলা” এবং বাংলায় গোবরে পোকা বলা হয়। কিরমিয ছোট চনার সমপরিমাণ লাল রঙের রেশমের মত এক ধরনের পোকাকে বলা হয়। যা সাধারণত বর্ষাকালে বন জঙ্গলে জন্ম নিয়ে থাকে। একে শুকিয়ে রেশম রাঙানোর জন্য লাল রং তৈরী করা হয়। এর দ্বারা ঔষধও তৈরী করা হয় এবং এর তৈলও পাওয়া যায়। উর্দূতে একে “বিরবহুটি” এবং বাংলায় ‘লাক্ষা পোকা’ বলা হয়। তৎকালীন যুগে অপরাধের স্বীকারোক্তির জন্য অপরাধীকে এ ধরনের শাস্তি প্রদান করা হতো। মাথার উপর প্রথমে গোবরে পোকা রেখে তারপর এর উপর লাক্ষা পোকা রেখে কাপড় দ্বারা অপরাধীর মাথায় বেঁধে দেয়া হতো। গোবরে পোকা মাথার খোল কেটে কেটে তাতে ছিদ্র করে দিতো। আর সে ছিদ্রগুলোতে লাক্ষা পোকার টুকরা ও গলিত পানি প্রবেশ করে মস্তিষ্কের পর্দা ও রগসমূহ ফেটে যেত। এটা এমনই এক অসহনীয় শাস্তি ছিল, যার তীব্র যন্ত্রণায় অপরাধী তাড়াতাড়ি অপরাধ স্বীকার করে ফেলত। এ লোমহর্ষক শাস্তির কথা শুনলে মানুষের গা শিউরে ওঠে। ফলে এর আলোচনার মাঝে এর চেয়েও কঠিন ও ভয়ানক পরকালের শাস্তির কথা মনে পড়ছে। হায়! সে বিষাক্ত কীট পতঙ্গগুলোর দংশন যখন আমাদের কেউ এক সেকেন্ডের জন্যও সহ্য করতে পারছেনা, তাহলে কিভাবে কবর ও জাহান্নামে অগণিত সাপ বিচ্ছুর দংশনকে সহ্য করতে পারবে? আল্লাহ্ না করুক; যদি একটি সামান্য গুনাহের কারণেও আমরা গ্রেফতার হই এবং একটি মাত্র বিচ্ছুও আমাদের মাথার উপর তুলে দেয়া হয়, তখন আমাদের কি অবস্থা হবে? 
দন্‌গ মচ্ছর কা বিহ্ মুজ ছে তো ছাহা জাতা নিহি,
কবর মে বিচ্ছু কে দন্‌গ কেইছে ছহোনগা ইয়া রব।
আফওয়া কর আওর ছদা কে লিয়ে রাজি হো জা,
ইয়ে কারম হো গা তো জান্নাত মে রহোনগা ইয়া রব।

মস্তক মোবারকের ঝলক

এক বর্ণনাতে এটাও রয়েছে; ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর মস্তক মোবারক পাপাত্মা ইয়াজিদের রাজ কোষাগারেই সংরক্ষিত ছিল। উমাইয়া শাসক সুলাইমান বিন আবদুল মালিকের শাসনামলে (৯৬-৯৯ হিঃ) তিনি জানতে পারলেন যে, ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর মস্তক মোবারক তাঁর রাষ্ট্রীয় কোষাগারেই সংরক্ষিত আছে। তাই তিনি সে মস্তক মোবারকের যিয়ারত দ্বারা ধন্য হলেন। তখনও পর্যন্ত সে মস্তক মোবারকের হাড়গুলো সাদা রূপার ন্যায় চকচক করছিল। তিনি রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে সে মস্তক মোবারক নিয়ে তাতে সুগন্ধি লাগালেন এবং কাফন পরিয়ে মুসলমানদের কবরস্থানে তা সমাহিত করলেন। (তাহজীবুত তাহজীব, ২য় খন্ড, ৩২৬ পৃষ্ঠা, দারুল ফিকির, বৈরুত)
ছেহরে মে আফতাব নবুওয়্যত কা নুর থা,
আখোঁ মে শানে ছওলতে ছরকার বো তুরাব।


প্রিয় নবী এর সন্তুষ্টি লাভের রহস্য

হযরত আল্লামা ইবনে হাজর হায়তমী মক্কী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ বর্ণনা করেন: এক রাতে উমাইয়া শাসক সুলাইমান বিন আবদুল মালিক স্বপ্নযোগে জনাবে রিসালাতে মাআব, হুযুর صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর দীদার লাভে ধন্য হলেন। তিনি দেখলেন: শাহিনশাহে রিসালাত صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم তাঁকে খুবই স্নে মমতা করছিলেন। সকালে তিনি হযরত সায়্যিদুনা হাসান বসরী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ এর নিকট এ স্বপ্নের তাবীর (ব্যাখ্যা) জানতে চাইলেন। হাসান বসরী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ বললেন: “সম্ভবত আপনি রাসূল পরিবার পরিজনের সাথে কোন মুহাব্বতপূর্ণ ও সৌহার্দমূলক আচরণ করেছেন।” তিনি বললেন: “হ্যাঁ, আমি হযরত সায়্যিদুনা ইমামে আলী মকাম ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর মস্তক মোবারক ইয়াজিদের রাজকোষাগারে পেয়েছিলাম। আমি একে পাঁচটি কাফন পরিধান করিয়ে আমার অনুচর বর্গসহ এর জানাযার নামায আদায় করে সমাহিত করেছিলাম।” হযরত সায়্যিদুনা হাসান বসরী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ “আপনার এ মহৎ কাজই আল্লাহর মাহবুব صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর সন্তুষ্টি লাভের একমাত্র কারণ।” (আস সাওয়ায়েকুল মুহরিকা, ১৯৯ পৃষ্ঠা)
মুস্তফা ইজ্জত বড়হানে কে লিয়ে তাজিম দে,
হে বুলন্দ ইকবাল তেরা দুদ মানে আহলে বাইত।

মস্তক মোবারকের সমাধিস্থল সম্পর্কে মতানৈক্যের সমাধান

খতিবে পাকিস্তান ওয়ায়েজে শিরী বয়ান, হযরত মাওলানা আলহাজ্ব, আল্ হাফেজ মুহাম্মদ শফি উকাড়বী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ তাঁর রচিত ‘শামে কারবালা’ গ্রন্থে লিখেছেন: মস্তক মোবারকের সমাধিস্থল সম্পর্কে বিভিন্ন বর্ণনা এসেছে এবং বিভিন্ন বর্ণনাতে বিভিন্ন স্থানে সে মস্তক মোবারক সমাহিত করা হয়েছিল বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তাই এসব বর্ণনার সমাধান ও মতানৈক্যের নিরসনকল্পে বলা যায়, মূলতঃ ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর মস্তক মোবারক বিভিন্ন স্থানে সমাহিত করা হয়নি, বরং কারবালার বিভিন্ন শহীদদের মস্তক মোবারক বিভিন্ন স্থানে সমাহিত করা হয়েছিল। কেননা কারবালার ঘটনার পর ইয়াজিদের নিকট আহলে বাইতের সকল শহীদদের মস্তক মোবারক প্রেরণ করা হয়েছিল এবং একেক জনের মস্তক মোবারক একেক স্থানে দাফন করা হয়েছিল, কিন্তু কার মস্তক কোথায় দাফন করা হয়েছিল তা সঠিক জানা নেই। তাই একান্ত ভক্তি, শ্রদ্ধা ও অগাধ বিশ্বাসের কারণে বা অন্য কোন কারণে সকল সমাধিস্থলের সম্পর্ক ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর প্রতি করা হয়ে থাকে। (শামে কারবালা, ২৪৯ পৃষ্ঠা)
صَلُّوا عَلَى الحَبِيب ! صَلَّى اللهُ تَعَالَى عَلى مُحَمَّد 

ক্ষমা প্রাপ্তি থেকে নৈরাশ্যতার এক হৃদয় বিদারক কাহিনী

হযরত সায়্যিদুনা আবু মুহাম্মদ সুলাইমান আ’মশ কুফী তাবেয়ী رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ বর্ণনা করেন: “একদা আমি বাইতুল্লাহ্ শরীফে হজ্জ করতে গিয়েছিলাম। তাওয়াফকালে আমি এক ব্যক্তিকে দেখতে পেলাম, সে কাবা শরীফের গিলাফ জড়িয়ে বলতে লাগল: “হে আল্লাহ্! আমাকে ক্ষমা করে দাও, আমার বিশ্বাস তুমি আমাকে ক্ষমা করবে না।” আমি তার এ আশ্চর্য দোয়াতে হতবাক হয়ে গেলাম। সে এমন কোন গুনাহ করল, যার ক্ষমাপ্রাপ্তির আশা পর্যন্তও সে করতে পারছেনা। কিন্তু আমি তাওয়াফে ব্যস্ত থাকার কারণে তাকে তার এ নৈরাশ্যতা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করতে পারলাম না। তাওয়াফের দ্বিতীয় চক্করেও আমি তাকে অনুরূপ দোয়া করতে শুনলাম। তখন আমার অবাক হওয়া আরো বেড়ে গেল। আমি তাওয়াফ শেষ করে তাকে জিজ্ঞাসা করলাম: “তুমি এমন এক মহান পূণ্যভূমিতে রয়েছ, যেখানে বড় বড় গুনাহ্ও ক্ষমা হয়ে যায়। তুমি যদি আল্লাহ্ তাআলার নিকট ক্ষমা ও রহমত প্রার্থনা করতে থাকো, তাহলে ক্ষমাপ্রাপ্তির আশাও পোষণ করো। কেননা, আল্লাহ্ তাআলা অসীম দয়ালু ও পরম করুণাময়।” সে বলল: “হে আল্লাহর বান্দা! আপনি কে? আমি বললাম: “আমি সুলাইমান আ’মশ”। সে আমার হাত ধরে আমাকে এক দিকে নিয়ে গেল এবং বলল: “আমার গুনাহ অনেক বড়।” আমি বললাম: “তোমার গুনাহ কি আসমান জমিন, পাহাড়পর্বত, আরশের চেয়েও বড়?” সে বলল: “হ্যাঁ, আমার গুনাহ খুবই বড়। আফসোস! হে সোলাইমান! আমি সে সত্তরজন হতভাগার একজন, যারা হযরত সায়্যিদুনা ইমামে আলী মকাম ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর শির মোবারক পাপাত্মা ইয়াজিদের নিকট এনেছিল। পাপাত্মা ইয়াজিদ সে শির মোবারক শহরের বাইরে ঝুলিয়ে রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছিল। আবার তারই নির্দেশে সে শির মোবারক নামিয়ে স্বর্ণের একটি রেকাবীতে তার শয়নকক্ষে রাখা হয়েছিল। অর্ধরাতে পাপাত্মা ইয়াজিদের স্ত্রী ঘুম থেকে জেগে দেখল, ইমামে আলী মকাম এর মস্তক মোবারক থেকে আসমান পর্যন্ত একটি নূরের দ্যুতি ঝকমক করছিল। এ অলৌকিক দৃশ্য দেখে সে খুবই ভীত হয়ে পড়ল এবং পাপাত্মা ইয়াজিদকে ঘুম থেকে জাগিয়ে বলল: “ওরে! ওঠে দেখ, আমি একটি আশ্চর্যজনক দৃশ্য দেখছি। ইয়াজিদও সে নূরের দ্যুতি দেখতে পেল এবং স্ত্রীকে চুপ থাকতে বলল। যখন সকাল হল, সে শির মোবারক তার কক্ষ থেকে বের করে একটি সবুজ কাপড়ের তাঁবুতে রাখল এবং এর পাহারায় সত্তর জন লোক সেখানে নিয়োগ করল। সে (নিরাশ ব্যক্তি) বলল: আমি তাদের মধ্যে একজন ছিলাম। অতঃপর আমাদেরকে খাবার খেয়ে আসার জন্য নির্দেশ দেয়া হল। যখন সূর্য অস্ত গেল এবং রাত অনেক হয়ে গেলো
আমরা ঘুমিয়ে পড়লাম। হঠাৎ আমার চোখ খুলে গেলো। আমি দেখতে পেলাম, বিশাল এক মেঘ এসে আকাশ ছেয়ে ফেলল এবং তাতে প্রচন্ড গর্জন ও বিকট আওয়াজও শুনা গেল। অতঃপর সে মেঘখন্ড ক্রমান্বয়ে জমিনের নিকটবর্তী হয়ে জমিনের সাথে মিলে গেল এবং তা থেকে একজন ব্যক্তি বেরিয়ে এলো যার পরনে জান্নাতের দুইটি পোশাক ছিল, আর তার হাতে একটি বিছানা ও কয়েকটি কুরসী ছিল। তিনি মাটিতে বিছানাটি বিছিয়ে তাতে কুরসীগুলো রাখলেন এবং ডাকতে লাগলেন: “হে আবুল বশর! হে আদি পিতা আদম عَلٰی نَبِیِّنَاوَعَلَیْہِ الصَّلوٰۃُ وَالسَّلام! তাশরীফ আনুন।” অতঃপর একজন খুবই সুদর্শন বুযুর্গ তাশরীফ আনলেন এবং শির মোবারকের কাছে দাঁড়িয়ে বললেন: “আপনার উপর সালাম, হে আল্লাহর বন্ধু! আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হোক, হে সালেহীনদের উত্তরসূরী! আপনি সফল হয়ে জীবিত থাকুন, কেননা আপনি নির্মমভাবে শহীদ হয়েছেন, খুবই পিপাসার্ত ছিলেন, অবশেষে আল্লাহ্ তাআলা আপনাকে আমাদের সাথে মিলিত করেছেন। আল্লাহ্ তাআলা আপনার উপর সদয় হোন, আর আপনার হত্যাকারীদের ক্ষমা না করুন। আপনার হত্যাকারীদের জন্য কিয়ামতের দিন জাহান্নামের বিভীষিকাময় শাস্তি রয়েছে।” এ বলে সে পুন্যাত্মা বুযুর্গ সেখান থেকে সরে দাঁড়ালেন এবং সে কুরসী সমূহের একটিতে গিয়ে বসে পড়লেন। অতঃপর কিছুক্ষণ পর আসমান থেকে আরেকটি মেঘ এসে জমিনের সাথে মিলে গেল। আমি শুনলাম, একজন আহ্বানকারী আহ্বান করল: “হে আল্লাহর নবী! হে নূহ عَلٰی نَبِیِّنَاوَعَلَیْہِ الصَّلوٰۃُ وَالسَّلام তাশরীফ আনুন।” হঠাৎ একজন সম্মানিত ব্যক্তিত্ব, সামান্য হলুদ বর্ণের অবয়ব বিশিষ্ট বুযুর্গ দুটি জান্নাতি পোশাক পরিধান করে তাশরীফ আনলেন এবং তিনিও প্রথম জনের মত শির মোবারককে সম্ভাষণ করে একটি কুরসীতে বসে পড়লেন। অতঃপর আরেকটি মেঘ এসে জমিনের সাথে মিলে গেল এবং তা থেকে হযরত সায়্যিদুনা ইব্রাহীম খলিলুল্লাহ عَلٰی نَبِیِّنَاوَعَلَیْہِ الصَّلوٰۃُ وَالسَّلام আবির্ভূত হলেন। তিনিও অনুরূপ সম্ভাষণ করে একটি চেয়ারে বসে পড়লেন। অনুরূপ হযরত সায়্যিদুনা মুসা কলিমুল্লাহ্ عَلٰی نَبِیِّنَاوَعَلَیْہِ الصَّلوٰۃُ وَالسَّلام ও হযরত সায়্যিদুনা ঈসা রূহুল্লাহও عَلٰی نَبِیِّنَاوَعَلَیْہِ الصَّلوٰۃُ وَالسَّلام তাশরীফ আনলেন। তাঁরাও অনুরূপ সম্ভাষণ জানিয়ে কুরসীতে বসে পড়লেন। অতঃপর আরেকটি বিশাল মেঘখন্ড এসে জমিনের সাথে মিলে গেল এবং সেটি থেকে প্রিয় নবী صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم, হযরত সায়্যিদাতুনা বিবি ফাতেমা رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهَا ,হযরত সায়্যিদুনা হাসান মুজতবা رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْه ও ফিরিশতারা তাশরীফ আনলেন। 
প্রথমে হুযুর পুরনূর صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم মস্তক মোবারকের নিকট তাশরীফ নিলেন। তিনি শির মোবারককে বুকে জড়িয়ে ধরে খুবই কাঁদলেন। তারপর সায়্যিদাতুনা বিবি ফাতেমা যাহরা رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهَا কে মস্তক মোবারক দিলেন। তিনিও শির মোবারক বুকে জড়িয়ে ধরে খুবই কান্না করলেন। অতঃপর হযরত সায়্যিদুনা আদম ছফিউল্লাহ্ عَلٰی نَبِیِّنَاوَعَلَیْہِ الصَّلوٰۃُ وَالسَّلام রহমাতুলল্লি আলামীন صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم এর নিকট এসে তাঁকে এভাবে শান্তনা জানালেন:

 اَلسّلَامُ عَلَى الْوَلَدِ الطَّيِّب اَلسّلَامُ عَلَى الْخَلْقِ الطَّيِّب 

اَعْظَمَ اللهُ اَجْرَكَ وَاَحْسَنَ عَذَاءَكَ فِى ابْنِكَ الْحُسَيْن
অর্থাৎ- “আপনার উপর সালাম হে পূণ্যাত্মার পূতঃ পবিত্র সন্তান! আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হোক হে সৃষ্টিকুল শ্রেষ্ঠ দুলাল! আল্লাহ্ তাআলা আপনাকে অধিক সাওয়াব দান করুক, আরো আপনার আদরের দুলাল হোসাইনের এ ঈমানী পরীক্ষায় সর্বোত্তম ধৈর্য ধারণের শক্তি ও মনোবল দান করুক ।”
অনুরূপ হযরত সায়্যিদুনা নুহ, হযরত সায়্যিদুনা খলিলুল্লাহ ইব্রাহীম,হযরত সায়্যিদুনা মুসা কলিমুল্লাহ্, হযরত সায়্যিদুনা ঈসা রূহুল্লাহ্ عَلٰی نَبِیِّنَا وَعَلَیْهِمُ الصَّلوٰۃُ وَالسَّلام তাঁকে শান্তনা ও সমবেদনা জানালেন। অতঃপর রহমতে আলম, নূরে মুজাস্সম, রাসূলে আকরাম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم কয়েকটি বাক্য বললেন।
একজন ফিরিশতা নবী করীম, রউফুর রহীম, হুযুর صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم নিকট এসে আরজ করলেন: “হে আবুল কাসেম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم হৃদয়বিদারক ও লোমহর্ষক ঘটনাতে আমরাও মর্মাহত ও শোকাহত। এ ঘটনায় আমাদের অন্তর বিদীর্ণ হয়ে গেছে, আমাদের কলিজা চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে গেছে। আমি দুনিয়া সংলগ্ন আসমানের দায়িত্বে নিয়োজিত আছি। আল্লাহ্ তাআলা আমাকে আপনার আনুগত্যের নির্দেশ দিয়েছেন। আপনি যদি আমাকে আদেশ দেন, তাহলে আমি সে জালিমদের উপর আসমান নিপতিত করে তাদেরকে নিঃশেষ করে দেব।” অতঃপর আরেকজন ফিরিশতা এসে আরজ করলেন: হে আবুল কাসেম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم! আমি সমূদ্রের দায়িত্বে নিয়োজিত আছি। আল্লাহ্ তাআলা আমাকে আপনার আনুগত্যের নির্দেশ দিয়েছেন। আপনি যদি আমাকে আদেশ দেন তাহলে আমি প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় দিয়ে তাদেরকে নিমিষের মধ্যে তছনছ করে দেব।” তাজেদারে মদীনা صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم ইরশাদ করলেন: “হে ফিরিশতারা! এরূপ করা থেকে বিরত থাকুন।” হযরত সায়্যিদুনা হাসান মুজতবা رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ ঘুমন্ত প্রহরীদের দিকে ইঙ্গিত করে বারগাহে রিসালাতে আরজ করলেন: “নানাজান! এ ঘুমন্ত লোকেরাই আমার ভাই হোসাইনের মস্তক মোবারক কারবালা প্রান্তর থেকে নরাধম ইয়াজিদের কাছে নিয়ে এসেছিল এবং তার আজ্ঞাবহ হয়ে সে শির মোবারকের পাহারায় এখনও নিয়োজিত আছে।” তখন নবীয়ে পাক صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم ইরশাদ করলেন: “হে আমার প্রতিপালকের ফিরিশতারা! আমার সন্তানের হত্যার প্রতিশোধে সে নরপিশাচদেরও হত্যা করো।” সে (নিরাশ ব্যক্তি) বলল: খোদার কসম! আমি দেখলাম, নিমিষের মধ্যেই আমার সকল সঙ্গীদেরকে জবাই করে দেয়া হলো। অতঃপর একজন ফিরিশতা আমাকে জবাই করার জন্য প্রস্তুত হলেন। তখন আমি চিৎকার দিয়ে ডাকলাম: “হে আবু কাসেম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم!আমাকে বাঁচান, আমার উপর সদয় হোন, আল্লাহ্ তাআলা আপনার উপর সদয় হোক।” তখন নবী করীম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم ফিরিশতাকে লক্ষ্য করে বললেন: “হে ফিরিশতা! তাকে জবাই না করে জীবিত রেখে দাও।” অতঃপর নবী করীম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم আমার নিকট এসে আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন: “তুমিও কি সে সত্তর জনের মধ্যে ছিলে, যারা মস্তক মোবারক এনেছিল?” আমি বললাম: “হ্যাঁ, আমিও ছিলাম।” অতঃপর নবী করীম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم তাঁর হাত মোবারক দ্বারা আমার ঘাড় চেপে ধরে আমাকে উপুড় করে ফেললেন এবং ইরশাদ করলেন: “আল্লাহ্ তাআলা তোমাকে না দয়া করুক, না ক্ষমা করুক। আল্লাহ্ তাআলা তোমার হাড়গুলো দোযখের আগুনে দগ্ধ করুক।”
ভাই এ কারণেই আমি আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়েছি। হযরত সায়্যিদুনা আ’মশ رَحْمَةُ اللهِ تَعَالٰى عَلَيْهِ তার নিকট এ কাহিনী শুনে বললেন: “ওহে হতভাগা! আমার কাছ থেকে তাড়াতাড়ি দূর হও। নতুবা তোমার কারণে আমার উপরও আযাব নাযিল হবে।” (শামে কারবালা, ২৬৭-২৭০ পৃষ্ঠা)
বাগে জান্নাত ছুড় কর আয়ি হে মাহবুবে খোদা
আয় জেহে কিসমত তোমহারি খুশতগানে আহলে বাইত

ধন-সম্পদ ও প্রভাব-প্রতিপত্তির মোহ

প্রিয় ইসলামী ভাইয়েরা! ধন সম্পদ ও প্রভাব প্রতিপত্তির মোহ মানুষের জীবনে মারাত্মক পরিণতি ডেকে আনে। আমার প্রিয় আক্বা, মদীনে ওয়ালে মুস্তফা صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم ইরশাদ করেছেন: “দুইটি ক্ষুধার্ত নেকড়েকে ছাগলের পালে ছেড়ে দিলে, যতটুকু বিপজ্জনক হবে না, ধন-সম্পদ ও মানমর্যাদার মোহ মানুষের ধর্মের জন্য তার চেয়ে বেশি বিপজ্জনক।” (সুনানে তিরমিযী, ৪র্থ খন্ড, ১৬৬ পৃষ্ঠা, হাদীস নং- ২৩৮৩)
পাপাত্মা ইয়াজিদ ধন সম্পদ, সাম্রাজ্য ও আধিপত্যের মোহে মোহিত হয়ে ইতিহাসের নিষ্ঠুর ও বর্বরতম কারবালার মর্মান্তিক ও বেদনাদায়ক হত্যাকান্ডের জন্ম দিয়েছিল। সে সর্বদা ইমামে আলী মকাম সায়্যিদুনা ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ কর্তৃক ক্ষমতা দখলের ভয়ে শঙ্কিত ছিল। তাই সে নিজ ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করনের হীন উদ্দেশ্যে নিরাপরাধ আহলে বাইতদের গলায় ছুরি চালানোর জন্য তার নরপিশাচ হায়েনাদের কারবালা প্রান্তরে লেলিয়ে দিয়েছিল। তারা হত্যাযজ্ঞের তান্ডবলীলা চালিয়ে কারবালা প্রান্তরে রক্তের স্রোত বইয়েছিল এবং ফোরাত নদীতে রক্তস্রোত প্রবাহিত করেছিল। অথচ এ ক্ষণস্থায়ী দুনিয়ার নেতৃত্ব ও আধিপত্যের প্রতি সায়্যিদুনা ইমামে আলী মকাম رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর যে বিন্দুমাত্রও লোভ লালসা ছিলনা, তা সে নরপিশাচ ইয়াজিদ একেবারে ভুলে গিয়েছিল। আর ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ ক্ষমতার মসনদে আসীন না হয়েও মুসলিম জাতির হৃদয়ের মনিকোঠায় ইহকাল ও পরকালে একজন স্বনামধন্য রাজাধিরাজ হিসেবে স্থান করে নিয়েছিলেন। তিনি হলেন মুসলিম উম্মাহর অন্তরের প্রশান্তি। আমাদের অন্তরে অতীতেও ছিলেন, আজও আছেন এবং কিয়ামত পর্যন্ত চিরস্মরনীয় হয়ে থাকবেন।
নহী শিমার কা ওয়হ শিতম রাহা, না ইয়াজিদ কি ওহ জাফা রহে
জু রাহা তো নামে হোসাইন কা জিছে জিন্দা রাখতি হে কারবালা
صَلُّوا عَلَى الحَبِيب ! صَلَّى اللهُ تَعَالَى عَلى مُحَمَّد
লিখাটি আমীরে আহলে সুন্নাত হযরত মাওলানা ইলয়াস আত্তার কাদেরী রযভী কর্তৃক লিখিত ৫০ পৃষ্ঠা সম্বলিত “ইমাম হোসাইনের কারামত“ নামক রিসালার ২৩-৩৭ নং পৃষ্ঠা হতে সংগৃহীত। অতি গুরুত্বপূর্ণ এই রিসালাটি অবশ্যই সংগ্রহে রাখুন। অন্যকে উপহার দিন।
যারা মোবাইলে (পিডিএফ) রিসালাটি পড়তে চান তারা ফ্রি ডাউনলোড করুন ।
দাওয়াতে ইসলামীর সকল বাংলা ইসলামীক বইয়ের লিংক এক সাথে পেতে এখানে ক্লিক করুন 

ইমাম হোসাইন رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ এর কারামত বিষয়ক বাকি লিখা

মাদানী চ্যানেল দেখতে থাকুন