কালিমা, নামায, রোযা, হজ্ব ও যাকাত নিয়ে ইসলামী জীবন

রমযানের ফযিলত ও মাসআলা- পর্ব-১

352

স্বর্ণের দরজা বিশিষ্ট মহল

বাকী পর্ব পড়তে ক্লিক করুন- দ্বিতীয় পর্ব তৃতীয় পর্ব
সায়্যিদুনা আবূ সাঈদ খুদরী رضى الله عنه থেকে বর্ণিত, মক্কী মাদানী সুলতান, রহমতে আলামিয়ান হযরত মুহাম্মদ রহমতপূর্ণ বাণী হচ্ছে, “যখন রমযান মাসের প্রথম রাত আসে, তখন আসমানগুলো ও জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয়। আর সেগুলো সর্বশেষ রাত পর্যন্ত বন্ধ হয় না। যে কোন বান্দা এ বরকতময় মাসের যে কোন রাতে নামায পড়ে, তবে আল্লাহ তাআলা তার প্রতিটি সিজদার পরিবর্তে (অর্থাৎ বিনিময় স্বরূপ) তার জন্য পনের শত নেকী লিপিবদ্ধ করেন। আর তার জন্য জান্নাতে লাল পদ্মরাগ পাথরের মহল তৈরী করেন, যার ষাট হাজার দরজা থাকবে, প্রতিটি দরজার কপাট স্বর্ণের তৈরী হবে, যাতে লাল বর্ণের পদ্মরাগের পাথর খচিত থাকবে। সুতরাং যে কেউ রমযানের প্রথম রোযা রাখে তার জন্য আল্লাহ তাআলা রমযানের শেষ দিন পর্যন্ত গুনাহ মাফ করে দেন এবং তার জন্য সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সত্তর হাজার ফিরিশতা মাগফিরাতের দু‘আ করতে থাকে। রাত ও দিনে যখনই সে সিজদা করে তার ওই প্রতিটি সিজদার বিনিময়ে তাকে (জান্নাতে) একেকটা এমন গাছ দান করা হবে, সেটার ছায়া অতিক্রম করতে ঘোড়ার আরোহীকে পাঁচশ বছর দৌঁড়াতে হবে।” (শু‘আবুল ঈমান, খন্ড-৩য়, পৃষ্ঠা-৩১৪, হাদিস-৩৬৩৫)

রমযানের ফযিলত

পাঁচটি বিশেষ দয়া

হযরত সায়্যিদুনা জাবির ইবনে আবদুল্লাহ رضى الله عنه থেকে বর্ণিত, রহমতে আলামিয়ান হাবীবে রহমান হযরত মুহাম্মদ এর মর্যাদাপূর্ণ বাণী হচ্ছে- “আমার উম্মতকে রমযান মাসে পাঁচটি এমন জিনিস দান করা হয়েছে, যেগুলো আমার পূর্বে অন্য কোন নবী পাননি ”
১. যখন রমযানুল মুবারকের প্রথম রাত আসে, তখন আল্লাহ তাআলা তাদের প্রতি রহমতের দৃষ্টি দেন। আর যার প্রতি আল্লাহ রহমতের দৃষ্টি দেন তাকে কখনো আযাব দেবেন না।
২. সন্ধ্যায় তাদের মুখের দুর্গন্ধ (যা ক্ষুধার কারণে সৃষ্টি হয়) আল্লাহ তা’আলা এর নিকট মেশকের চেয়েও বেশি সুগন্ধি হয়।
৩. ফিরিশতাগণ প্রত্যেক দিনে ও রাতে তার জন্য মাগফিরাতের দু’আ করতে থাকেন।
৪. আল্লাহ তা’আলা জান্নাতকে নির্দেশ দিয়ে ইরশাদ ফরমান, “আমার নেক বান্দাদের জন্য সুসজ্জিত হয়ে যাও! শীঘ্রই তারা দুনিয়ার কষ্টের বিনিময়ে আমার ঘর ও দয়ার মধ্যে শান্তি পাবে।”
৫. যখন রমযান মাসের সর্বশেষ রাত আসে তখন আল্লাহ তাআলা সবাইকে ক্ষমা করে দেন।”
উপস্থিতদের মধ্যে একজন দাঁড়িয়ে আরয করলেন, “হে আল্লাহর রসূল এটা কি ‘লাইলাতুল ক্বদর?” ইরশাদ ফরমালেন, “না”। তোমরা কি দেখনি যে, শ্রমিকগণ যখন নিজের কাজ সম্পন্ন করে নেয়, তখন তাদেরকে পারিশ্রমিক দেয়া হয়?” (আত্তারগীব ওয়াত্তারহীব, খন্ড-২য়, পৃষ্ঠা-৫৬, হাদীস-৭)

সগীরা’ গুনাহের কাফফারা

হযরত সায়্যিদুনা আবু رضى الله عنه থেকে বর্ণিত, হুযুর পুরনূর, শাফিয়ে ইয়াউমুন নূশুর হযরত মুহাম্মদ এর আনন্দদায়ক ফরমান, “পাঁচ ওয়াক্তের নামায, এক জুমা থেকে পরবর্তী জুমা পর্যন্ত, এক রমযান মাস থেকে পরবর্তী রমযান মাস পর্যন্ত গুনাহ্ সমূহের কাফফারা হয়ে যায়, যতক্ষণ কবীরা গুনাহ্ থেকে বিরত থাকা হয়।” (সহীহ মুসলিম, খন্ড-১ম, পৃ-১৪৪, হাদীস নং-২৩৩)

তওবার পদ্ধতি

রমযানুল মুবারকে রহমতের মুসলধারে বৃষ্টি ও সগীরা গুনাহ্ সমূহের কাফফারার মাধ্যম হয়ে যায়। ‘কবীরা’ গুনাহ তওবা মাধ্যমে ক্ষমা হয়ে যায়।
তওবা করার পদ্ধতি হচ্ছে:- যে গুনাহ্ হয়েছে, বিশেষভাবে ওই গুনাহ্ উল্লেখ করে মনে মনে তার প্রতি ঘৃনা ও ভবিষ্যতে সেটা থেকে বেঁচে থাকার অঙ্গীকার করে তওবা করতে হবে। উদাহরণ স্বরূপ, মিথ্যা বললে, এটা ‘কবীরা গুনাহ্।’
সুতরাং আল্লাহ তাআলার মহান দরবারে আরয করবে, “হে আল্লাহ! আমি এ যে মিথ্যা বলেছি, তা থেকে তওবা করছি। ভবিষ্যতে বলবোনা।” তওবা করার সময় অন্তরে মিথ্যা বলার প্রতি ঘৃণা, আর ‘ভবিষ্যতে বলবো না’ কথাটা বলার সময় অন্তরে এ দৃঢ় ইচ্ছাও থাকবে যে, ‘যা কিছু মুখে বলছি, তেমনি করবো।’ তখনই হবে ‘তওবা’। যদি বান্দার হক বিনষ্ট করে থাকে, তবে তওবার সাথে সাথে ওই বান্দার নিকট থেকে ক্ষমা করিয়ে নেয়াও জরুরী।

হযরত মুহাম্মদ ﷺ এর জান্নাতরূপী বর্ণনা

হযরত সায়্যিদুনা সালমান ফারসী رضى الله عنه বলেন, মাহবুবে রহমান হযরত মুহাম্মদ শা’বান মাসের শেষ দিনে ইরশাদ করেছেন, “হে লোকেরা! তোমাদের নিকট মহান ও বরকতময় মাস এসেছে। মাসটি এমন যে, তাতে একটি রাত (এমনি) রয়েছে, যা হাজার মাস অপেক্ষাও উত্তম। এ (বরকতময়) মাসের রোযা আল্লাহ তাআলা ফরয করেছেন। আর সেটার রাতে জাগ্রত থেকে ইবাদত-বন্দেগী করা ‘তাতাওভু’(এখানে রাতে জাগ্রত রয়ে ইবাদত করা অর্থাৎ তারাবীর নামায পড়া। এটা সুন্নত) যে ব্যক্তি এতে নেক কাজ (নফল ইবাদত) করলো, তা হলো ফরয ইবাদতের সমান। আর যে ব্যক্তি ফরয আদায় করেছে, তা হলো সত্তর ফরযের সমান। এ মাস ধৈর্যের। আর ধৈর্যের বিনিময় হচ্ছে জান্নাত। আর এ মাস হচ্ছে সমবেদনা প্রকাশ ও উপকার করার মাস। এ মাসে মু’মিনদের জীবিকা বাড়িয়ে দেয়া হয়। যে ব্যক্তি এতে রোযাদারকে ইফতার করায়, তা তার গুনাহ্ সমূহের জন্য (মাগফিরাত)। তাকে জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্ত করে দেয়া হবে। আর যে ইফতার করায় সে তেমনি সাওয়াব পাবে যেমন পাবে রোযা পালনকারী, তার রোযা পালনকারীর সাওয়াবে কোনরূপ কম হবে না। আমরা আরয করলাম, “হে আল্লাহর রসূল ! আমাদের মধ্যে প্রত্যেকের এমন জিনিস নেই, যা দিয়ে ইফতার করাবে, হুযুর ইরশাদ করেছেন, “আল্লাহ তা’আলা এ সাওয়াব ওই ব্যক্তিকে দেবেন, যে এক ঢোক দুধ, কিংবা একটা খেজুর অথবা এক ঢোক পানি দ্বারা রোযাদারকে ইফতার করায়। আর যে ব্যক্তি রোযাদারকে পেট ভরে আহার করায়, তাকে আল্লাহ তা’আলা আমার ‘হাওয’ থেকে পান করাবেন। ফলে সে আর কখনো পিপাসার্ত হবে না। শেষ পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করবে। এটা হচ্ছে ওই মাস, যার প্রথমাংশ (অর্থাৎ-প্রথম দশদিন) ‘রহমত’, সেটার মধ্যভাগ (অর্থাৎ মধ্যভাগের দশদিন) ‘মাগফিরাত’ এবং শেষাংশ (অর্থাৎ শেষ দশদিন) ‘জাহান্নাম থেকে মুক্তি (নাজাত)’।
যে ব্যক্তি তার কর্মচারীর উপর এ মাসে কাজকর্ম সহজ করে দেয়, আল্লাহ তা’আলা তাকে ক্ষমা করে দেবেন। জাহান্নাম থেকে মুক্ত করবেন। এ মাসে চারটি কাজ বেশি পরিমাণে কর, সেগুলোর দু’টি হচ্ছে এমন যে, সে দুটি দ্বারা তোমরা আপন রবকে সন্তুষ্ট করতে পারবে। আর অবশিষ্ট দুটির প্রতি তো তোমরাই মুখাপেক্ষী।
সুতরাং যে দু’টি কাজ দ্বারা তোমরা আপন প্রতিপালককে সন্তুষ্ট— করতে পারবে, সে দুটি হচ্ছে-
১. “আল্লাহ ব্যতীত অন্য কোন উপাস্য নেই” মর্মে সাক্ষ্য দেয়া এবং 
২. ক্ষমা প্রার্থনা করা। 
আর যে দুটি থেকে তোমরা বাঁচতে পারো না, সেগুলো হচ্ছে-
১. আল্লাহ তা’আলার মহান দরবারে জান্নাত আশা করা এবং 
২. জাহান্নাম থেকে আল্লাহ তা’আলার আশ্রয় প্রার্থনা করা। (সহীহ ইবনে খুযাইমা, পৃষ্ঠা-১৮৮৭, খন্ড-৩য়)

রমযান মুবারকের চারটি নাম

আল্লাহু আকবর! মাহে রমযানেরও কেমন কল্যাণ! হযরত মুফতী আহমদ ইয়ার খান  رحمة الله عليه ‘তাফসীরে নঈমী’ শরীফে বর্ণনা করেন, “এ বরকতময় মাসের সর্বমোট চারটি নাম রয়েছে-১. মাহে রমযান, ২. মাহে সবর, ৩. মাহে মুওয়াসাত (সমবেদনা জ্ঞাপন ও উপকার সাধনের মাস) এবং ৪. মাহে ওয়াসআতে রিয্ক (জীবিকা প্রশস্ত হবার মাস)।” তিনি আরো লিখেছেন, “রোযা হচ্ছে ধৈর্য, যার প্রতিদান- খোদ মহান আল্লাহ। আর তা এই মাসেই পালন করা হয়। এ কারণে সেটাকে ‘মাহে সবর’ বলা হয়। ‘মুওয়াসাত’ মানে উপকার করা। যেহেতু, এ মাসে সমস্ত মুসলমানের সাথে, বিশেষ করে পরিবার-পরিজন ও নিকটাত্মীয়দের সাথে সদ্ব্যবহার করা বেশি সাওয়াবের কাজ। তাই সেটাকে ‘মাহে মুওয়াসাত’ বলা হয়। এতে জীবিকা প্রশস্ত হয়। ফলে গরীবরাও নে’মত ভোগ করে। এজন্য এর নাম রিযিক প্রশস্ত হওয়ার মাসও। (তাফসীরে নঈমী, খন্ড-২য়, পৃষ্ঠা-২০৮)

রমযানুল মুবারকের ১৩টি মাদানী ফুল

(এই সকল মাদানী ফুল তফসীরে নঈমী ২য় খন্ড থেকে নেয়া হয়েছে)
১. কা’বা শরীফ মুসলমানদেরকে তার নিকট ডেকে রহমত প্রদান করে, কিন্তু এটা (মাহে রমযান) এসে রহমত বন্টন করে। এ বিষয়টা এমন যেন সেটা (কা’বা) একটা কূপ, আর এটা (রমযান শরীফ) হচ্ছে সমুদ্র। অথবা ওটা (অর্থাৎ কা’বা) হচ্ছে সমুদ্র আর এটা (অর্থাৎ রমযান) হচ্ছে বৃষ্টি।
২. প্রতিটি মাসে বিশেষ বিশেষ কিছু দিন-তারিখ রয়েছে। আর তারিখগুলোর মধ্যেও বিশেষ মুহুর্তে ই’বাদত-বন্দেগী সম্পন্ন করা হয়। যেমন-ঈদুল আযহার কয়েকটা (বিশেষ) তারিখে হজ্জ, মুহররমের দশম দিন উত্তম, কিন্তু রমযান মাসে প্রতিদিনে ও প্রতিটি মুহুর্তে ইবাদত হয়। রোযা ইবাদত, ইফতার ইবাদত, ইফতারের পর তারাবীর জন্য অপেক্ষা করা ইবাদত, তারাবীহ পড়ে সাহারীর জন্য অপেক্ষা করতে গিয়ে ঘুমানো ইবাদত, তারপর সাহারী খাওয়াও ইবাদত। মোটকথা, প্রতিটি মুহুর্তে আল্লাহ তাআলার শান ও মহা বদান্যতাই নজরে পড়ে।
৩. ‘রমযান’ হচ্ছে একটা ‘ভাট্টি’। ভাট্টি হল অপরিস্কার লোহাকে পরিস্কার এবং পরিস্কার লোহাকে মেশিনের যন্ত্রাংশে পরিণত করে দামী করে দেয়, আর স্বর্ণকে অলংকারে পরিণত করে ব্যবহারের উপযুক্ত করে দেয়, তেমনিভাবে রমযান মাস গুনাহগারদের পবিত্র করে এবং নেককার লোকদের মর্যাদা বৃদ্ধি করে দেয়।
৪. রমযানে নফলের সাওয়াব ফরযের সমান এবং ফরযের সাওয়াব সত্তর গুণ বেশি পাওয়া যায়।
৫. কিছু সংখ্যক আলিম বলেছেন, “যে ব্যক্তি রমযানে মৃত্যুবরণ করে, তাকে কবরে প্রশ্ন করা হয় না।”
৬. এ মাসে শবে ক্বদর রয়েছে। আগের আয়াত থেকে বুঝা গেলো যে, কোরআন রমযান মাসে অবতীর্ণ হয়েছে। অন্যত্র ইরশাদ হচ্ছে,
 إِنَّ اَنْزَلْنهُ فِىْ لَيْلَةِ الْقَدْرِ
কানযুল ঈমান থেকে অনুবাদ: নিশ্চয় আমি সেটাকে ক্বদর রাত্রিতে অবতরণ করেছি। (পারা-৩০, সূরা-কদর, আয়াত-১)
উভয় আয়াতকে মিলালে বুঝা যায় যে, শবে ক্বদর রমযান মাসেই। আর তা ২৭তম রাতে হবার সম্ভাবনা থাকে বেশী। কেননা, লায়লাতুল ক্বদর এর মধ্যে ৯টি বর্ণ আছে, আর এ ‘শব্দ দু’টি সূরা ক্বদরে তিনবার করে ইরশাদ হয়েছে। যার গুণফল দাঁড়ায় ২৭ (সাতাশ)। সুতরাং বুঝা গেলো সেটা (শবে ক্বদর) ২৭ তম রাতেই।
৭. রমযান মাসে শয়তানকে বন্দী করা হয়, দোযখের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়, জান্নাতকে সুসজ্জিত করা হয় এবং দরজাগুলো খুলে দেয়া হয়। এ কারণে, এসব দিনে সৎকর্ম অধিক ও গুনাহ কমে যায়। যে সব লোক গুনাহ করেও নেয়, তারা ‘নফসে আম্মারা’ কিংবা ‘নিজেদের সাথী শয়তান’ (সঙ্গে অবস্থানকারী শয়তান) পথভ্রষ্ট করার কারণে করে থাকে।
৮. রমযানে পানাহারের হিসাব হয় না।
৯. কিয়ামতে রমযান ও কোরআন রোযাদারের জন্য সুপারিশ করবে। রমযান বলবে, “ওহে আমার মালিক! আমি তাকে দিনের বেলায় পানাহার থেকে বিরত রেখেছিলাম।” আর কোরআন আরয করবে, “ওহে মহান রব! আমি তাকে তিলাওয়াত ও তারাবীর মাধ্যমে ঘুমাতে দেইনি।
১০. হুযুর পুরনূর শফিয়ে ইয়াউমুন নুশুর, হযরত মুহাম্মদ রমযানুল মুবারকে প্রত্যেক কয়েদীকে মুক্ত করে দিতেন এবং প্রত্যেক ভিখারীকে দান করতেন। মহা মহিম প্রতিপালকও রমযান মাসে দোযখীদেরকে মুক্তি দেন। সুতরাং রমযানে নেক কাজ করা এবং পাপ কাজ থেকে বিরত থাকা উচিত।
১১. কোরআন করীমে শুধু ‘রমযান’ শরীফের নাম উল্লেখ করা হয়েছে এবং সেটার ফযীলতসমূহই বর্ণিত হয়েছে। অন্য কোন মাসের নাম ও ফযীলত সুস্পষ্টভাবে নেই। মাসগুলোর মধ্যে কোরআন শরীফে শুধু রমযান মাসের নাম নেয়া হয়েছে, নারীদের মধ্যে শুধু বিবি মরিয়ম رضى الله عنها এর নাম এসেছে, সাহাবায়ে কেরামের মধ্যে শুধু হযরত সায়্যিদুনা যায়দ ইবনে হারিসা رضى الله عنه এর নাম নেয়া হয়েছে, যার কারণে ওই তিন জনের মহত্ব জানা গেলো।
১২. রমযান শরীফে ইফতার ও সাহারীর সময় দু’আ কবুল হয়; (অর্থাৎ ইফতারের সময় ও সাহারীর সময়।) এ মর্যাদা অন্য কোন মাসে নেই।
১৩. (রমযান) শব্দের মধ্যে পাঁচটি বর্ণ আছে : ر দ্বারা (রহমতে ইলাহী) বুঝায়, ميم দ্বারা (মুহব্বতে ইলাহী), ض দ্বারা (আল্লাহ তাআলার বদান্যতার দায়িত্ব) বুঝায়, ا দ্বারা (আল্লাহর নিরাপত্তা) এবং ن দ্বারা (নূরে ইলাহী) বুঝায়। তদুপরি, রমযানে পাঁচটি ইবাদত বিশেষভাবে সম্পন্ন হয় : ১. রোযা, ২. তারাবীহ, ৩. তিলাওয়াতে কোরআন, ৪. ইতিকাফ এবং ৫. শবে ক্বদরের ইবাদত। সুতরাং যে কেউ সত্য অন্তরে এ পাঁচটি ইবাদত করবে সে ওই পাঁচটি পুরস্কারের উপযুক্ত হবে। (তাফসীরে নঈমী, খন্ড-২য়, পৃ-২০৮)

প্রতিটি রাতে ষাট হাজার গুনাহগারের মুক্তি লাভ

হযরত সায়্যিদুনা আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ رضى الله عنه থেকে বর্ণিত, মক্কী-মাদানী সুলতান, রহমতে আলামিয়ান, হযরত মুহাম্মদ এর রহমতপূর্ণ ফরমান, “রমযান শরীফের প্রতিটি রাতে আসমানে সুবহে সাদিক পর্যন্ত একজন আহ্বানকারী এ বলে আহ্বান করে, “হে কল্যাণকামী! আল্লাহ তা’আলার আনুগত্যের দিকে অগ্রসর হও এবং পরিপূর্ণ কর! অর্থাৎ আনন্দিত হয়ে যাও! ওহে অসৎকর্মপরায়ণ! অসৎকর্ম থেকে বিরত হও এবং শিক্ষা গ্রহণ করো। কেউ মাগফিরাত চাওয়ার আছো কি? তার দরখাস্ত পূরণ করা হবে। কেউ তওবাকারী আছো কি? তার তওবা কবুল করা হবে। কেউ প্রার্থনাকারী আছো কি? তার দু’আ কবুল করা হবে। কোন কিছুর জন্য প্রার্থনা করারও কেউ আছো কি? তার প্রার্থনা পূরণ করা হবে। আল্লাহ তা’আলা রমযানুল মুবারকের প্রতিটি রাতে ইফতারের সময় ষাট হাজার গুনাহগারকে দোযখ থেকে মুক্তি দান করেন। আর ঈদের দিন সমগ্র মাসের সমসংখ্যক গুনাহগারকে ক্ষমা করা হয়।”(দুররে মনসুর, খন্ড-১ম, পৃ-১৪৬)

প্রতিদিন দশলক্ষ গুনাহগারকে দোযখ থেকে মুক্তিদান

আল্লাহ তা’আলার দান, দয়া ও ক্ষমার কথা উল্লেখ করে এক জায়গায় তাজেদারে মদীনা, সুরুরে কলবো সীনা হযরত মুহাম্মদ ইরশাদ করেছেন, “যখন রমযানের প্রথম রাত আসে, তখন আল্লাহ তা’আলা আপন সৃষ্টির দিকে দয়ার দৃষ্টি দেন। বস্তুত: যখন আল্লাহ কোন বান্দার দিকে দয়ার দৃষ্টি দেন, তাকে কখনো আযাব দেবেন না। আর প্রতিদিন দশলক্ষ (গুনাহগারকে) জাহান্নাম থেকে মুক্ত করে দেন। (এভাবে) যখন ঊনত্রিশতম রাত আসে তখন গোটা মাসে যতসংখ্যক লোককে মুক্তিদান করেছেন, তার সমসংখ্যক মানুষকে ওই রাতে মুক্তিদান করেন। অতঃপর যখন ঈদুল ফিতরের রাত আসে তখন ফিরিশতাগণ আনন্দ প্রকাশ করে। আর আল্লাহ তাআলা আপন নূরকে বিশেষভাবে বিচ্ছুরিত করেন এবং ফিরিশতাদেরকে বলেন, “হে ফিরিশতারদল! ওই শ্রমিকদের কি প্রতিদান হতে পারে, যে তার দায়িত্ব পালন করেছে? ফিরিশতাগণ আরয করেন, “তাকে পরিপূর্ণ প্রতিদান দেয়া হোক।” আল্লাহ তা’আলা ইরশাদ ফরমান, “আমি তোমাদেরকে সাক্ষী করছি-আমি তাদের সবাইকে ক্ষমা করে দিয়েছি।” (কানযুল উম্মাল, খন্ড-৮ম, পৃ-২১৯, হাদীস নং-২৩৭০২)

জুমার দিনের প্রতিটি মুহুর্তে দশ লক্ষ জাহান্নামীর মাগফিরাত

হযরত সায়্যিদুনা আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস رضى الله عنهم থেকে বর্ণিত, মাহবুবে রাব্বিল আলামীন, সায়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন হযরত মুহাম্মদ এর আনন্দদায়ক ফরমান, “আল্লাহ মাহে রমযানে প্রতিদিন ইফতারের সময় এমন দশলক্ষ গুনাহগারকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দান করেন, যাদের গুনাহের কারণে জাহান্নাম অনিবার্য (ওয়াজিব) হয়েছিলো। অনুরূপভাবে, জুমার রাতে ও জুমার দিনে (অর্থাৎ বৃহস্পতিবার সূর্যাস্ত থেকে আরম্ভ করে জুমার দিনের সূর্যাস্ত পর্যন্ত) প্রতিটি মুহুর্তে এমন দশলক্ষ গুনাহগারকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেয়া হয়, যারা শাস্তির উপযোগী বলে সাব্যস্ত হয়েছিল।”  (কানযুল উম্মাল, খন্ড-৮ম, পৃষ্ঠা-২২৩, হাদীস নং-২৩৭১৬)

কল্যাণই কল্যাণ

আমীরুল মু’মিনীন হযরত সায়্যিদুনা উমর ফারুক رضى الله عنه বলেন,“ওই মাসকে স্বাগতম, যা আমাদেরকে পবিত্রকারী! গোটা রমযান মাস কল্যাণই কল্যাণ। দিনের বেলায় রোযা হোক, কিংবা রাত্রি জাগরণ করে ইবাদত। এ মাসে ব্যয় করা জিহাদে অর্থ ব্যয় করার মত মর্যাদা রয়েছে।” (তাম্বীহুল গাফিলীন, পৃষ্ঠা-১৭৬)

ব্যয়কে বাড়িয়ে দাও

হযরত সায়্যিদুনা দ্বামুরা رضى الله عنه থেকে বর্ণিত, নবী করীম রাউফুর রাহীম হযরত মুহাম্মদ এর মহান বাণী হচ্ছে, “মাহে রমযানে পরিবারের লোকজনের ব্যয়কে বাড়িয়ে দাও। কেননা, মাহে রমযানে খরচ করা আল্লাহ তা’আলার রাস্তায় খরচ করার মতোই।”(আল জামেউস সাগীর, পৃষ্ঠা-১৬২, হাদিস-২৭১৬)

বড় বড় চক্ষু বিশিষ্ট হুরেরা

হযরত সায়্যিদুনা আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস رضى الله عنه থেকে বর্ণিত, নবী করীম রউফুর রাহীম হযরত মুহাম্মদ এর মহান বাণী হচ্ছে“যখন রমযান শরীফের প্রথম তারিখ আসে, তখন মহান আরশের নিচে থেকে মাসীরাহ নামক বাতাস প্রবাহিত হয়, যা জান্নাতের গাছপালাকে নাড়া দেয়। ওই বাতাস প্রবাহিত হবার কারণে এমনি মনোরম উচ্চস্বর ধ্বনিত হয়, যার চেয়ে উত্তম সুর আজ পর্যন্ত কেউ শুনেনি। ওই সুর শুনে (সুন্দর চোখ বিশিষ্ট) হুরেরা বেরিয়ে আসে। শেষ পর্যন্ত তারা জান্নাতের উঁচু উঁচু মহলগুলোর উপর দাঁড়িয়ে যায়। আর বলে, “কেউ আছো, যে আল্লাহ তা’আলার দরবারে আমাদের প্রার্থী হবে, যাতে তার সাথে আমাদের বিবাহ হয়?” তারপর ওই হুরগুলো জান্নাতের দারোগা (হযরত) রিদ্বওয়ান عليه السلام কে বলে, “আজ এ কেমন রাত?” হযরত রিদ্বওয়ান عليه السلام তদুত্তরে বলে, “হাঁ! এটা মাহে রমযানের প্রথম রাত। জান্নাতের দরজাগুলো হযরত মুহাম্মদ এর উম্মতের রোযাদারের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে।” (আত্তারগীব ওয়াত্তারহীব, খন্ড-২য়, পৃষ্ঠা-৬০, হাদীস-২৩)

দুটি অন্ধকার দূরীভূত হয়

বর্ণিত আছে যে, আল্লাহ তা’আলা হযরত সায়্যিদুনা মূসা কলীম উল্লাহ عليه السلام কে বলেন, আমি উম্মতে মুহাম্মদী কে দুটি ‘নূর’ (জ্যোতি) দান করেছি। যাতে তারা দু’টি অন্ধকারের বিপদ থেকে নিরাপদে থাকে। সায়্যিদুনা মুসা কলীম উল্লাহ عليه السلام আরয করলেন, “হে আল্লাহ! ওই নূর দু’টি কি কি?” ইরশাদ হলো, “রমযানের নূর” ও “কোরআনের নূর”।”সায়্যিদুনা মুসা কলীম উল্লাহ عليه السلام আরয করলেন, অন্ধকার দু’টি কি কি?” বললেন, “একটা কবরের, আর অপরটা কিয়ামতের।” (দুররাতুন্নাসিহীন, পৃষ্ঠা-৯)
লিখাটি আমীরে আহলে সুন্নাত হযরত মাওলানা ইলয়াস আত্তার কাদেরী রযভী কর্তৃক লিখিত রযমান মাসের বিস্তারিত মাসাইল সম্পর্কিত “রমযানের ফযিলত” নামক কিতাবের ৫-২২ নং পৃষ্ঠা হতে সংগৃহীত। কিতাবটি নিজে কিনুন, অন্যকে উপহার দিন।

যারা মোবাইলে (পিডিএফ) কিতাবটি পড়তে চান তারা ফ্রি ডাউনলোড দিন
দাওয়াতে ইসলামীর সকল বাংলা ইসলামীক বইয়ের লিংক এক সাথে পেতে এখানে ক্লিক করুন

বাকী পর্ব পড়তে ক্লিক করুন- দ্বিতীয় পর্ব তৃতীয় পর্ব
মাদানী চ্যানেল দেখতে থাকুন